BREAKING NEWS
আগামী ২৬শে ফেব্রুয়ারি রাজ্যের ৬টি বিধানসভা কেন্দ্রের ৬টি বুথে পুনরায় নির্বাচনের নির্দেশ দিল জাতীয় নির্বাচন কমিশন। এই ৬টি কেন্দ্র হল সোনামুড়া, ধনপুর, কদমতলা কুর্তি, তেলিয়ামুড়া, অম্পিনগর এবং সাব্রুম।


  • জয় সম্পর্কে সুনিশ্চিত সিপিআইএম
  • রাজনৈতিক সন্ত্রাস কবলিত এলাকা সফরে বিজেপির প্রদেশ সভাপতি
  • ক্যাডার সন্ত্রাসে প্রাণ গেল গৃহবধূর
  • মধ্যপ্রদেশের দুই বিধানসভা আসনে আজ ভোটগ্রহণ
  • অকালে চলে গেলেন সংবাদ পাঠক দেবদুলাল
  • চালু হল ওএনজিসি সোনামুড়ায় জিসিএস
  • ফুটপাত ব্যবসায়ীদের দখলে, পুরনিগম ঘুমে
  • গাড়ির ধাক্কায় এক বৃদ্ধের মৃত্যু
  • আবার মজলিশপুর বিধানসভা কেন্দ্রে উদ্ধার বিস্ফোরক
  • ১লা মার্চ ত্রিপুরা হাইকোর্টের নতুন প্রধান বিচারপতির শপথ
  • দুটি কেন্দ্রের ভোট গণনা স্থলে পরিবর্তন জানালো সিপিআইএম
  • থানার লাগোয়া স্থানে ছিনতাই বাজদের খপ্পরে মহিলা আইনজীবী
  • নির্বাচন কমিশনের কার্যকলাপকে ক্রিমিনাল ক্যালাসমাত বললো সিপিআইএম
  • হায়দরাবাদে রাসায়নিক ফ্যাক্টরিতে বিধ্বংসী আগুন, দগ্ধ ছ’জন কর্মী
  • ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে রেল যোগাযোগের কাজ চলছে জোর কদমে
  • চারটি ব্যাগ সহ এক গাঁজা পাচারকারী আটক
  • আবারো সর্বনাশী ব্লু-হুইল প্রাণ কেরে নিল এক যুবকের
  • নিখোঁজ সন্তানের খোজে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে পোস্টার লাগালো মাতা পিতা
  • ৩ মাস ধরে নিখোঁজ দম্পতি
  • মিথ্যা অভিযোগে মহিলাকে পেটাইয়ের দায়ে অভিযুক্তরা অধরা, বাড়ছে ক্ষোভ
  • জাতীয় সড়কে চলাচল বিঘ্নিত
  • ৬ ফেব্রুয়ারি ৬টি বিধানসভা কেন্দ্রে পুনরায় নির্বাচন
  • আগরতলা, ২৩শে ফেব্রুয়ারি (এ.এন.ই ): আগামী ২৬শে ফেব্রুয়ারি রাজ্যের ৬টি বিধানসভা কেন্দ্রের ৬টি বুথে পুনরায় নির্বাচনের নির্দেশ দিল জাতীয় নির্বাচন কমিশন। এই ৬টি কেন্দ্র হল সোনামুড়া, ধনপুর, কদমতলা কুর্তি, তেলিয়ামুড়া, অম্পিনগর এবং সাব্রুম। এই ৬টি বিধানসভা কেন্দ্রের ৬টি বুথে অসংগতি সংক্রান্ত রিপোর্ট পাওয়ার ভিত্তিতেই পুনরায় নির্বাচনের নির্দেশ দিল জাতীয় নির্বাচন কমিশন। এই মর্মে একটি নির্দেশিকা রাজ্যের মুখ্যনির্বাচনী আধিকারিককে পাঠিয়েছে জাতীয় মুখ্য নির্বাচন কমিশন। জাতীয় নির্বাচন কমিশন থেকে জানানো হয়েছে আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি সকাল ৭টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত এই ৬টি বিধানসভা কেন্দ্রের ৬টি বুথে ভোট গ্রহণ হবে।
  • নির্বাচনে সন্ত্রাস ঠেকাতে পুনরায় আসছে কেন্দ্রীয় বাহিনী
  • শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় এইমসে ভর্তি মন্ত্রী খগেন্দ্র জামাতিয়া

ইক্সক্লোসিভ ভিডিও

ঘরেই বানিয়ে নিন লাইটিং লেন্টার্ন

ত্বকের উজ্বলতার জন্য ২০টি টিপস

ডেনমার্কে তৈরি হচ্ছে বিশ্বের প্রথম লম্বা ডিম! দেখুন কীভাবে লম্বা ডিম পাড়ে মুরগী

বিজ্ঞাপণ ব্যানার

বিজ্ঞাপণ ব্যানার

ত্রিপুরা খবর

00310
0057
0057
0057
0057
আজ ভ্যালেন্টাইন ডে

আগরতলা, ১৪ই ফেব্রুয়ারি (এ.এন.ই ): আজ লাল গোলাপের উৎসব, নাকি আকন্দ-ধুতরোয় ব্রতপালন—কার দিকে পাল্লা ভারী, তা নিয়ে মুখরোচক চর্চা সর্বত্র। সব মিলিয়ে ভক্তি আর ভালোবাসার মিলমিশেই আজ রাজ্যে সরকারি ছুটির দিন। উপভোগেরও দিন।
'ভ্যালেন্টাইন ডে’ এর ইতিহাস কীরকম? একটু জেনে নেওয়া যাক। ২৭০ খ্রিষ্টাব্দের কথা। তখন রোমান সম্রাট দ্বিতীয় ক্লডিয়াস নারী-পুরুষের বিবাহ বাধনে আবদ্ধ হওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিলেন। তার ধারণা ছিল, বিবাহ বাধনে আবদ্ধ হলে যুদ্ধের প্রতি পুরুষদের অনীহা সৃষ্টি হয়। সে সময় রোমের খ্রিষ্টান গির্জার পুরোহিত ‘ভ্যালেন্টাইন’ রাজার নির্দেশ অগ্রাহ্য করে গোপনে নারী-পুরুষের বিবাহ বাধনের কাজ সম্পন্ন করতেন। এ ঘটনা উদ্ঘাটিত হওয়ার পর তাকে রাজার কাছে ধরে নিয়ে আসা হয়। ভ্যালেন্টাইন রাজাকে জানালেন, খিষ্টধর্মে বিশ্বাসের কারণে তিনি কাউকে বিবাহ বাধনে আবদ্ধ হতে বারণ করতে পারেন না। রাজা তখন তাকে কারাগারে নিক্ষেপ করেন। কারাগারে থাকা অবস্খায় রাজা তাকে খ্রিষ্টান ধর্ম ত্যাগ করে প্রাচীন রোমান পৌত্তলিক ধর্মে ফিরে আসার প্রস্তাব দেন এবং বিনিময়ে তাকে ক্ষমা করে দেয়ার কথা বলেন। উল্লেখ্য, রাজা দ্বিতীয় ক্লডিয়াস প্রাচীন রোমান পৌত্তলিক ধর্মে বিশ্বাস করতেন এবং তৎকালীন রোমান সাম্রাজ্যে এ ধর্মের প্রাধান্য ছিল। যা হোক, ভ্যালেন্টাইন রাজার প্রস্তাব মানতে অস্বীকৃতি জানালেন এবং খ্রিষ্ট ধর্মের প্রতি অনুগত থাকার কথা পুনর্ব্যক্ত করলেন। তখন রাজা তাকে মৃত্যুদণ্ডের নির্দেশ দেন। অত:পর রাজার নির্দেশে ২৭০ খ্রিষ্টাব্দের ১৪ ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। পরে রোমান সাম্রাজ্যে খ্রিষ্ট ধর্মের প্রাধান্য সৃষ্টি হলে গির্জা ভ্যালেন্টাইনকে `সেন্ট' হিসেবে ঘোষণা করে। ৩৫০ সালে রোমের যে স্খানে ভ্যালেন্টাইনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছিল সেখানে তার স্মরণে একটি গির্জা নির্মাণ করা হয়। অবশেষে ৪৯৬ খ্রিষ্টাব্দে খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের ধর্মগুরু পোপ গ্লসিয়াস ১৪ ফেব্রুয়ারিকে `ভ্যালেন্টাইন্স ডে’ হিসেবে ঘোষণা করেন। ভ্যালেন্টাইন কারারক্ষীর যুবতী মেয়েকে ভালোবাসার কারণে খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের ধর্মগুরু পোপ গ্লসিয়াস ১৪ ফেব্রুয়ারিকে ‘ভ্যালেন্টাইন ডে’ ঘোষণা করেননি। কারণ, খ্রিষ্ট ধর্মে পুরোহিতদের জন্য বিয়ে করা বৈধ নয়। তাই পুরোহিত হয়ে মেয়ের প্রেমে আসক্তি খ্রিষ্ট ধর্মমতে অনৈতিক কাজ। তা ছাড়া, ভালোবাসার কারণে ভ্যালেন্টাইনকে কারাগারে যেতে হয়নি। কারণ, তিনি কারারক্ষীর মেয়ের প্রেমে পড়েছিলেন কারাগারে যাওয়ার পর। সুতরাং, ভ্যালেন্টাইনকে কারাগারে নিক্ষেপ ও মৃত্যুদণ্ডদানের সাথে ভালোবাসার কোনো সম্পর্ক ছিল না। তাই ভ্যালেন্টাইনের কথিত ভালোবাসা সেন্ট ভ্যালেন্টাইন ডে’র মূল বিষয় ছিল না। বরং ধর্মের প্রতি গভীর ভালোবাসাই তার মৃত্যুদণ্ডের কারণ ছিল।


Copyright © 2017 আগরতলা নিউজ এক্সপ্রেস. All Rights Reserved.