BREAKING NEWS
আগামী ২৬শে ফেব্রুয়ারি রাজ্যের ৬টি বিধানসভা কেন্দ্রের ৬টি বুথে পুনরায় নির্বাচনের নির্দেশ দিল জাতীয় নির্বাচন কমিশন। এই ৬টি কেন্দ্র হল সোনামুড়া, ধনপুর, কদমতলা কুর্তি, তেলিয়ামুড়া, অম্পিনগর এবং সাব্রুম।


  • জয় সম্পর্কে সুনিশ্চিত সিপিআইএম
  • রাজনৈতিক সন্ত্রাস কবলিত এলাকা সফরে বিজেপির প্রদেশ সভাপতি
  • ক্যাডার সন্ত্রাসে প্রাণ গেল গৃহবধূর
  • মধ্যপ্রদেশের দুই বিধানসভা আসনে আজ ভোটগ্রহণ
  • অকালে চলে গেলেন সংবাদ পাঠক দেবদুলাল
  • চালু হল ওএনজিসি সোনামুড়ায় জিসিএস
  • ফুটপাত ব্যবসায়ীদের দখলে, পুরনিগম ঘুমে
  • গাড়ির ধাক্কায় এক বৃদ্ধের মৃত্যু
  • আবার মজলিশপুর বিধানসভা কেন্দ্রে উদ্ধার বিস্ফোরক
  • ১লা মার্চ ত্রিপুরা হাইকোর্টের নতুন প্রধান বিচারপতির শপথ
  • দুটি কেন্দ্রের ভোট গণনা স্থলে পরিবর্তন জানালো সিপিআইএম
  • থানার লাগোয়া স্থানে ছিনতাই বাজদের খপ্পরে মহিলা আইনজীবী
  • নির্বাচন কমিশনের কার্যকলাপকে ক্রিমিনাল ক্যালাসমাত বললো সিপিআইএম
  • হায়দরাবাদে রাসায়নিক ফ্যাক্টরিতে বিধ্বংসী আগুন, দগ্ধ ছ’জন কর্মী
  • ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে রেল যোগাযোগের কাজ চলছে জোর কদমে
  • চারটি ব্যাগ সহ এক গাঁজা পাচারকারী আটক
  • আবারো সর্বনাশী ব্লু-হুইল প্রাণ কেরে নিল এক যুবকের
  • নিখোঁজ সন্তানের খোজে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে পোস্টার লাগালো মাতা পিতা
  • ৩ মাস ধরে নিখোঁজ দম্পতি
  • মিথ্যা অভিযোগে মহিলাকে পেটাইয়ের দায়ে অভিযুক্তরা অধরা, বাড়ছে ক্ষোভ
  • জাতীয় সড়কে চলাচল বিঘ্নিত
  • ৬ ফেব্রুয়ারি ৬টি বিধানসভা কেন্দ্রে পুনরায় নির্বাচন
  • আগরতলা, ২৩শে ফেব্রুয়ারি (এ.এন.ই ): আগামী ২৬শে ফেব্রুয়ারি রাজ্যের ৬টি বিধানসভা কেন্দ্রের ৬টি বুথে পুনরায় নির্বাচনের নির্দেশ দিল জাতীয় নির্বাচন কমিশন। এই ৬টি কেন্দ্র হল সোনামুড়া, ধনপুর, কদমতলা কুর্তি, তেলিয়ামুড়া, অম্পিনগর এবং সাব্রুম। এই ৬টি বিধানসভা কেন্দ্রের ৬টি বুথে অসংগতি সংক্রান্ত রিপোর্ট পাওয়ার ভিত্তিতেই পুনরায় নির্বাচনের নির্দেশ দিল জাতীয় নির্বাচন কমিশন। এই মর্মে একটি নির্দেশিকা রাজ্যের মুখ্যনির্বাচনী আধিকারিককে পাঠিয়েছে জাতীয় মুখ্য নির্বাচন কমিশন। জাতীয় নির্বাচন কমিশন থেকে জানানো হয়েছে আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি সকাল ৭টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত এই ৬টি বিধানসভা কেন্দ্রের ৬টি বুথে ভোট গ্রহণ হবে।
  • নির্বাচনে সন্ত্রাস ঠেকাতে পুনরায় আসছে কেন্দ্রীয় বাহিনী
  • শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় এইমসে ভর্তি মন্ত্রী খগেন্দ্র জামাতিয়া

ইক্সক্লোসিভ ভিডিও

ঘরেই বানিয়ে নিন লাইটিং লেন্টার্ন

ত্বকের উজ্বলতার জন্য ২০টি টিপস

ডেনমার্কে তৈরি হচ্ছে বিশ্বের প্রথম লম্বা ডিম! দেখুন কীভাবে লম্বা ডিম পাড়ে মুরগী

বিজ্ঞাপণ ব্যানার

বিজ্ঞাপণ ব্যানার

টপ ফাইভ

00310
ত্রিপুরায় অস্তিত্ব রক্ষার লড়াইয়ে তৃণমূল কংগ্রেস

আগরতলা, ১৪ই ফেব্রুয়ারি (এ.এন.ই ): পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেস ত্রিপুরায় তাদের অস্তিত্ব রক্ষার লড়াইয়ে নেমেছে। পশ্চিমবঙ্গের বিধায়ক তথা মেয়র সব্যসাচী দত্ত ত্রিপুরায় পরে আছেন। শুধুমাত্র সম্মানজনক অবস্থান পাওয়ায় আশায়। যদিও তৃণমূল কংগ্রেসের কোন প্রার্থীই জয়ের জন্য লড়াই করছেন না। চেষ্টাও করছেননা। চেষ্টা করছেন জামানত বাঁচানোর। ত্রিপুরায় বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেস ২৪টি আসনে প্রার্থী দিয়েছে। অন্যদিকে তৃণমূল কংগ্রেসের সমর্থনে উপজাতি ভিত্তিক রাজনীতি দল আইএনপিটি এবং এনএসপিটি মিলে ১৬টি আসনে প্রার্থী দিয়েছে। যদিও কোন কেন্দ্রেই এখনো তৃণমূল কংগ্রেসের দৃষ্টি কারার মত কোন প্রচার সজ্জা নেই। পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেসদের খানেক আগেও ত্রিপুরায় পথঘাট, মাঠ কাঁপিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনের পর এই রাজ্যে একাংশ কংগ্রেসিদের মধ্যেও ঘাস ফুলের বেশ দোলা লাগে। ৬ জন বিধায়ক তৎকালীন বিধানসভা বিরোধী দলনেতা সুদীপ রায় বর্মণের নেতৃত্বে তৃণমূল কংগ্রে]স ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। বিধানসভায় তৃণমূল কংগ্রেস প্রথমবারের মত তাদের অস্তিত্বের জানান দেয়। সাড়া রাজ্যে ব্যাপক তৎপরতা পরিলক্ষিত হয়। কিন্তু এই পরিস্থিতি বেশিদিন স্থায়ী হয়নি। সুদীপ রায় বর্মণের কার্যকলাপে অসন্তুষ্ট হয়ে যারা ইতিপূর্বে তৃণমূলে সামিল হয়েছিলেন তারাই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সিদ্ধান্ত বেকে বসেন এবং তারা সর্বোপরি বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিলেন, রতন চক্রবর্তী এবং সুরজিৎ দত্ত। কিন্তু এখানেই তৃণমূলের অধোগতি থেমে থাকেনি। পরবর্তী সময়ে তৃণমূল কংগ্রেসের ত্রিপুরায় কার্যত বিলুপ্তির মুখে এসে ঠেকে। আর এই অবস্থায় ত্রিপুরায় অস্তিত্ব রক্ষার লড়াইয়ে সেনাপতি করে কলকাতা থেকে সব্যসাচী দত্তকে ত্রিপুরায় পাঠানো হয়েছে। ত্রিপুরায় তৃণমূল কংগ্রেসের বর্তমানে কোন কমিটি নেই। হাতে গোনা কয়েকজন কর্মকর্তা রয়েছেন। তাদের মাধ্যমেই চেষ্টা চলছে অস্তিত্ব রক্ষার জন্য। যদিও ইতিমধ্যেই রাজ্য সফর করে গেছেন ববি হাকিম, টলিউডের তারকা দেব, রাজীব চ্যাটার্জি প্রমুখ। বিভিন্ন স্থানে তারা সভা করেছেন, মিছিলেও যোগ দিয়েছেন। কিন্তু মিছিলে লোক সমাগম সম্পর্কে পার্টির নেতারাই আশ্বস্ত হতে পারেননি। তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য নেতা তথা প্রাক্তন সভাপতি দুলাল দাস বলেন, ত্রিপুরায় তৃণমূল কংগ্রেস এখন যথেষ্ট দুর্বল। তবে যথা সম্ভব ভাল ফলের চেষ্টা করা হচ্ছে। সরকার গঠন করার মত কিংবা আসাম দখল করার মত পরিস্থিতিতে এখনো তৃণমূল কংগ্রেস আসতে পারেনি। তবে আগামী দিনে ত্রিপুরার রাজনীতিতে তৃণমূল কংগ্রেস যথেষ্ট ভাল অবস্থান নিতে সক্ষম হবে। রাজ্যে বামবিরোধী হাওয়া তীব্র আকার ধারন করেছে। কিন্তু জনগণের ইচ্ছা পূরণের মত শক্তি এখনো রাজ্যে মাতা তুলে ধারাতে পারছেনা। নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেস অবশ্যই নিজেদের অস্তিত্ব জানান দিতে পারবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।


Copyright © 2017 আগরতলা নিউজ এক্সপ্রেস. All Rights Reserved.